জলধি / কবিতা / সুবীর সরকারের তিনটি কবিতা
Share:
সুবীর সরকারের তিনটি কবিতা

স্মৃতি
বাথানের মহিষ কে ঘাস খাওয়াব বলে উন্মাদের
                                         মত ছুটে গিয়েছিলাম।
আলো হারানো ভোরের ভেতর ডুবে গিয়ে
পুরোন কান্নার স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে গিয়ে
                                  আশরীর কেঁপে কেঁপে উঠি।
 জীবন ও যাপনের ভেতরে গান বাজে
 ফুটো হয়ে যাওয়া নৌকো থেকে লাফিয়ে নামে
                                         মস্ত সওদাগর
 সহসা বাদ্য শুনে উড়ে যায় সীমান্তের পাখি
 শুন দুপুর, বাঁশ পাতা আর হরিণ নিয়ে আমাদের
                                         আলোচনাসভা
 পথে পা রাখি আর পথ সংক্ষিপ্ত হয়।
 বিপণী তে বিক্রি হচ্ছে ভাঙা চশমা
 চৌরাস্তায় পৌঁছে দেখি কলোনির মাঠে হুডখোলা
                                          জিপ ঢোকে

বিকেলতাঁবু
বিকেলতাঁবুর মাথায় নীল রঙের মেঘ
নর্তকী খুঁজছেন পটেটো চিপস
জংশন এ দাড়িয়ে সিটি দিচ্ছে মেইল 
                                             ট্রেন
ঘাসের বিছানায় এখন ডাম্পিং গ্রাউন্ড
মনখারাপ মুছে ফেলে আমরা রুমাল ওড়াই

গান

ভুলে থাকি স্বাভাবিক জীবন।
শালিকের ভেজা ডানা আর দূরাগত মেঘের 
                             ছায়ায় চিনে নিতে থাকা পথ ঘাট
স্মৃতি থেকে যে গান উঠে এল
নৌকো আর নদী আস্ত এক ফ্রেম
পাল্টানো শহরের ডাকবাক্স থেকে কুড়িয়ে আনতে
                                               থাকা চিঠি
আর স্থির হয়ে থাকা পুকুরের জল।
আর প্রমাণ ছাড়াই অভিযোগপত্র লিখি 
                                                     আমরা।



অলংকরণঃ আশিকুর রহমান প্লাবন